Dirilis Ertugrul Walpaper

দিরিলিস আরতুগ্রুল থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে পাকিস্তানের লাহোরে আরতুগ্রুলের ভাষ্কর্য স্থাপন | Place the sculpture of ertugrul

দিরিলিস সংবাদ

দিরিলিস অর্কাইভঃ  পাকিস্তানের উত্তর-পূর্ব অঞ্চল লাহোরের বাসিন্দারা তুরস্কের ঐতিহাসিক টিভি সিরিজ দিরিলিস আরতুগ্রুলে চিত্রিত মধ্যযুগীয় তুর্কি নেতা মুসলিম বীর আরতুগ্রুল গাজীর স্মরণে একটি ভাষ্কর্য তৈরি করেছেন।

দিরিলিস আরতুগ্রুলঃ

তুর্কি থেকে আমদানি করা একটি টেলিভিশন সিরিজের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তা এবং সাংস্কৃতিক প্রভাবের ইঙ্গিত দেয়। যেটা অটোমান সাম্রাজ্যের উত্স চিত্রিত হয়েছিল। দিরিলিস আরতুগ্রুল সিরিজটি ত্রয়োদশ শতাব্দীর যাযাবর তুর্কি উপজাতি নেতাদের গল্পের উপর ভিত্তি করে নির্মিত। যিনি বর্তমানের সিরিয়া ও তুরস্কে মঙ্গোল, ক্রুসেডার এবং বাইজেন্টাইন শাসকদের মুখোমুখি হয়েছিল।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এই সিরিজটি সমর্থন করে বলেছিলেন যে, এটি হলিউড এবং বলিউডের “অশ্লীলতা” রোধে এবং পারিবারিক সংস্কৃতি প্রচারে সহায়তা করবে। এরপর থেকে দেশের যুব সমাজের মধ্যে “ইসলামিক ইতিহাস ও নীতিশাস্ত্র” প্রচারিত এই সিরিজটি ব্যপকভাবে দেখা শুরু করেন। অটোমান সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা উসমানের পিতা আরতুগ্রুল গাজী যিনি অটোমান সাম্রাজ্যের ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন। তাকে নিয়ে এবং তাদের যাযাবর পরিবেশ নিয়ে নির্মিত এই দিরিলিস আরতুগ্রুল সিরিজ। পাকিস্তানি রাষ্ট্রীয় পরিচালিত সম্প্রচারক, পাকিস্তান টেলিভিশন (পিটিভি) চলতি বছরের এপ্রিলে রমজানের শুরুতে উর্দু ডাবিংয়ের মাধ্যমে সিরিজটি সম্প্রচার করতে শুরু করেছে।

পিটিভির ইউটিউব চ্যানেলে দু’মাসে ৫৮ মিলিয়নেরও বেশি লোক প্রথম পর্বটি দেখেছিল এবং পুরো অনুষ্ঠানটি পাকিস্তানে প্রায় ২৫০ মিলিয়নেরও বেশি ভিউ পেয়েছে। দিরিলিস আরতুগ্রুল এখন পর্যন্ত আউটলেট দ্বারা প্রচারিত সর্বাধিক দেখা প্রোগ্রামে পরিণত হয়েছে। পিটিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমের মনজুর রয়টার্সকে বলেছেন, কোনও টেলিভিশন অনুষ্ঠানই দিরিলিস আরতুগ্রুল এর মতো পাকিস্তানকে এতো আলোড়িত করতে পারেনি। সবাই বলে যে, এটি ‘গেম অফ থ্রোনস’ এর তুর্কি খেলা।

ভাষ্কর্য স্থাপনঃ

লাহোরের একটি বেসরকারী সমবায় আবাসন সমিতির সভাপতি শাহজাদ চীমা বলেছেন, “আমি এই ধারাবাহিক দিরিলিস আরতুগ্রুল সিরিজটি খুব পছন্দ করি এবং এই চরিত্রগুলোর ইতিহাস  সম্পর্কে আমি আগেই জানতাম। সঠিক আদর্শের প্রচারের জন্য এই বীরের জীবন-আকারের ভাষ্কর্যটি স্থাপনের জন্য আমি এই ধারণাটি গ্রহণ করি। আমাদের তরুণ প্রজন্মের মহান যোদ্ধাদের শিক্ষার মাধ্যম হিসাবে একটি সবার দেখা উচিৎ। এই ভাষ্কর্যটি উসমানীয় সুলতানিতের প্রতি আমাদের ভালবাসার এবং আরতুগ্রুল যে জিহাদটি করেছিল তা আমাদের বিশ্বজুড়ে (মুসলমানদের) শ্রদ্ধার স্মরণ করিয়ে দিবে। দু’দশকেরও বেশি সময় ধরে সৌদি আরবে বসবাসরত এবং মধ্য প্রাচ্যে ভ্রমণ করেছিলেন তিনি এবং  অটোমান ইতিহাসের এক বিশাল অনুরাগী। তাঁর বাড়িতে মুসলিম ইতিহাস সম্পর্কিত বইয়ের একটি গ্রন্থাগার রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, আমি সব সময় সুলতানি-উসমানিয়া সাম্রাজ্যের গৌরব দেখে মুগ্ধ ছিলাম। তার সাহসের কারণেই মুসলিম বিরোধী শক্তিকে পরাজিত করা আরতুগ্রুল গাজীর প্রতিভিম্ব বাচ্চাদের প্রতি আমাদের মহান ইতিহাস এবং পূর্বপুরুষদের সম্পর্কে জানতে আগ্রহী করে তুলেছে, যারা লড়াই করেছিল ১৩ তম শতাব্দীতে মহান বীরত্বের সাথে অত্যাচারীদের বিরুদ্ধে। দিরিলিস আরতুগ্রুলে তা চমৎকার ভাবে ফুটিয়ে তুলা হয়েছে।

সাত ফুট লম্বা এই মূর্তিটি একটি মোড়ে একটি খোলা জায়গায় স্থাপন করা হয়েছে। বাসিন্দারা আশেপাশের আরতুগ্রুল গাজী চৌক (চৌরাস্তা) নাম রেখেছেন। আমাদের আশেপাশের সমস্ত চৌরাস্তাটি ইসলামের যোদ্ধাদের নামে নামকরণ করা হয়েছে। এই ছোট জিনিসগুলি আমাদের পরিচয় এবং ইসলামী সাংস্কৃতিক মূল্যবোধের কাছাকাছি রাখে, চিমা বলেছিলেন। তিনি আরো জানান আরতুগ্রুলের দ্বিতীয় মূর্তি প্রস্তুত করা হয়েছে এবং শীঘ্রই পাড়ার মূল মোড়ে স্থাপন করা হবে।

কাস্টম-বিল্ট মূর্তিটি ফাইবার এবং লোহার দ্বারা তৈরি এবং মুলতানে তৈরি করা হিয়েছে। এটি ঘোড়ার পিঠে তরোয়াল চালিত এরতুগ্রুল গাজিকে চিত্রিত করে। আমি ব্যক্তিগতভাবে অর্ডার দেওয়ার জন্য মুলতানে গিয়েছিলাম। ভাষ্কর্যটি উন্মোচিত হওয়ার পরে চরিত্রটির জনপ্রিয়তার সীমা নেই, মানুষ বিভিন্ন শহর থেকে এমনকি তাদের প্রিয় নায়কের ভাষ্কর্য এর সাথে ছবি তুলতে আসছেন এবং তার জীবন সম্পর্কে শিখছেন,” তিনি ব্যাখ্যা তুলে ধরছেন।

সুত্রঃ ডেইলি সাবাহ, টি.আর.টি ওয়ার্ল্ড, দ্যা ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস ও এ.এ.আর ডট টি.আর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *